Breaking News

ভাবমূর্তি পাল্টাতে পর্দায় খুন করতেও রাজি মধুমিতা!

কলকাতার বুকে একটা বস্তি, আর সেখানে থাকা কিছু মানুষের লড়াইয়ের গল্প। সেই লড়াইয়ের রসদ যোগায় সুর, মিউজিক। চেনা কলকাতার বুকে থাকা সেই অচেনা জগতের খোঁজ পেয়ে যায় জয়ী। তারপর? সুর, র‌্যাপ, থেকে শুরু করে অ’পরাধ জগত, বাঁচবার ইচ্ছা… ‘ট্যাংরা ব্লু’জ’-এর গল্পের মোড়কে পাওয়া যাব'ে সেই উত্তর। পরিচালক সুপ্রিয় সেনের নতুন ছবির জন্য এই প্রথমবার রুপোলি পর্দায় জুটি বাঁধলেন পরমব্রত চট্টোপাধ্যায় ও মধুমিতা সরকার।

মুম্বইয়ের উঠতি স'ঙ্গীত পরিচালক জয়ী। গানে মজে, গান ভালোবাসে সে। আর মধুমিতা? ছোটবেলা থেকে তাঁর তিনটি ভালোলাগা। কাজ, ভ্রমণ আর গান। অ'ভিনেত্রী বলছেন, ‘আমি যে কোনও রকম গান শুনতে ভালোবাসি। যেমন গানের কথা আমায় টানে, তেমনই টানে ইনস্ট্রুমেন্টাল মিউজিক। সেইদিক থেকে ট্যাংরা ব্লু’জ এমন একটা ছবি যার প্রাণই মিউজিক। এমন একটি ছবির অংশ 'হতে পারা আমা'র কাছে খুব বড় ব্যাপার।’ আর পরমব্রতর স'ঙ্গে জুটি বাঁধার অ'ভিজ্ঞতা? মধুমিতা হেসে বললেন, ‘যতক্ষণ না বড়পর্দায় নিজেকে পরম'দার স'ঙ্গে দেখতে পাচ্ছি আমা'র যেন বিশ্বা'সই হচ্ছে না। আমি ভিন্ন স্বাদের কাজ করতে চেয়েছি সবসময়। আর এখন সেই সুযোগগু'লোও পাচ্ছি। তার ওপর এমন কো-স্টার। এর থেকে ভালো আর কী 'হতে পারে!’

ট্যাংরায় থেকে শ্যুটিং করতে 'হত। বস্তি এলাকার অলিতে-গলিতে ঘুরতে ঘুরতে মধুমিতা ভাবতেন, কলকাতার মধ্যেও এমন একটা জায়গা থাকতে পারে? গল্পের ‘জয়ী’ বলছেন, ‘শ্যুটিং-এ ঠাসা কাজ থাকত। ট্যাংরায় যখন শ্যুট করতাম, দেখতাম সব অদ্ভুত অদ্ভুত বাড়ির গঠনশৈলী, রাস্তাঘাট… অন্য চোখে চিনেছি জায়গাটাকে। আর আমা'দের টিমটা ভীষণ ভালো ছিল। ডিওপি রঞ্জন পালিত স্যারের স'ঙ্গে ছবি বানানো নিয়ে প্রচুর কথা বলতাম। সুপ্রিয় স্যারের থেকেও অনেক কিছু শিখেছি।’

‘পাখি’ থেকে ‘ইমন’, ‘চিনি’ থেকে ‘জয়ী’। প্রত্যেকবার নিজের ইমেজ ভাঙছেন মধুমিতা। কতটা চ্যালেঞ্জিং এই ভাঙা গড়াটা? ‘ভগবান করুন, আমি যেন চিরজীবন এই ভাঙা গড়াটার মধ্যেই থাকতে পারি।’ হাসলেন মধুমিতা। তারপর বললেন, ‘ধা'রাবাহিক থেকে সিনেমায় অ'ভিনয়, একটা জিনিস সবসময় মাথায় রাখি, যেন আমা'র আগের চরিত্রের স'ঙ্গে নতুন চরিত্রের কোনও মিল না থাকে। যদি দিন যাব'ে কাজটা কঠিন হবে আর আমা'র খিদেটাও বাড়তে থাকবে।’ এমন কোনও চরিত্র রয়েছে যাতে অ'ভিনয় করার স্বপ্ন দেখেন? নায়িকা বললেন, ‘আমা'র অনেকদিন ধরে ডার্ক সেডের চরিত্রে অ'ভিনয় করার ইচ্ছে। আমা'র চেহারা দেখে হয়ত মিষ্টি মেয়ে, প্রেমিকা বা কলেজ পড়ুয়ার চরিত্র দেওয়াটা খুব সহজ। কিন্তু আমি চাই সম্পূর্ণ বিপরীত কোনও চরিত্র যেটা আমা'র চেহারার স'ঙ্গে মানায়ই না। সেটা কোনও সিরিয়াল কিলার বা সাইকো 'হতে পারে। দর্শক দেখে মনে করবে, মধুমিতা এমনও 'হতে পারে! এমন কোনও অ'ভিনয় করার জন্য আমি মুখিয়ে থাকব।’ বলিউডে কার স'ঙ্গে অ'ভিনয় করার স্বপ্ন রয়েছে? ‘আমির খান। ওনার কোনও ছবিতে একটা সিনের জন্য যদি থাকতে পারি…। তবে আমা'র প্রিয় অ'ভিনেতা ছিলেন ইরফান খান। এখনও তাই..।’ একটু থামলেন মধুমিতা।

শ্যুটিং সেটের সবচেয়ে মজার ঘটনা? ‘উল্টোদিকে মঞ্চ তৈরি চলছে, আর আমি আমা'র ব্যান্ড মেম্বারদের স'ঙ্গে বিট বক্সিং করছি.. বুম…বুম… বুম.. বুম…’

About Admin_dhakasongbad

Check Also

পর্দায় প্রথমবার একসঙ্গে হাজির হচ্ছেন অক্ষয় খান্না এবং রবিনা ট্যান্ডন

এই প্রথমবার একস'ঙ্গে পর্দায় হাজির হচ্ছেন অক্ষয় খান্না এবং রবিনা ট্যান্ডন। সৌজন্যে,বিজয় গু'ত্তের ওয়েব সিরিজ …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *